বাংলোতে শাকিব-অপুকে একসঙ্গে থাকার ব্যবস্থা করে দেন আফসারী

ঢাকাই সিনেমার সাবেক দম্পতি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। একসঙ্গে করেছেন ৭০টির বেশি সিনেমা। বেশির ভাগই সুপারহিট। শাকিব খান ও নায়িকা অপু বিশ্বাস বিয়ে করেছিলেন ২০০৮ সালে। তবে সেই খবর প্রকাশ্যে আসে ২০১৭ সালে। ক্যারিয়ারের কথা ভেবে দীর্ঘ ৯ বছর তারা দাম্পত্য জীবন রেখেছিলেন আড়ালে। শেষমেশ সন্তানসহ একটি টেলিভিশন লাইভে বোমা ফাটান অপু। তুলে ধরেন বিয়ে ও সন্তান গ্রহণের বিস্ফোরক তথ্য।

সাধারণ মানুষের কাছে শাকিব-অপুর বিয়ের খবর গোপন থাকলেও ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই সেটা জানত। তবে কেউই প্রকাশ করেননি। স্বামী-স্ত্রী হওয়ার কারণে শুটিংয়ে তাদেরকে একসঙ্গেই থাকার ব্যবস্থা করা হতো। বিষয়টি জানালেন সফল নির্মাতা মালেক আফসারী। তার পরিচালিত সুপারহিট সিনেমা মনের জ্বালাতে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছিলেন শাকিব-অপু। এই সিনেমার শুটিংয়ের সময়ই তাদের বিয়ের কথা জানতে পারেন নির্মাতা। সিনেমার প্রযোজক তাপসী ঠাকুরের কথামতো শাকিব-অপুকে একটি বাংলোতে একসঙ্গে থাকার ব্যবস্থা করেন আফসারী।

সম্প্রতি এক টিভি অনুষ্ঠানে মালেক আফসারীকে ইঙ্গিত করে মন্তব্য করেছেন অপু বিশ্বাস। সেটা দেখেই কিছুটা ক্ষুব্ধ হয়েছেন তিনি। অপু বিশ্বাসের উদ্দেশ্যে আফসারী বলেন, আপনাকে কবে থেকে ম্যাডাম বলে ডাকি জানেন? এক শীতের সময়, আউটডোর। মনে আছে, আপনাদের থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলাম দূরের বাংলোতে? কার ইশারায় জানেন? তাপসী ঠাকুরের। তিনি মনের জ্বালা সিনেমার প্রযোজক। তিনি আমাকে ফোন করে বলেছেন, আপনাদের যেন এভাবেই রাখি। আমি অবাক হয়ে বললাম, একজন প্রযোজক হয়ে আপনি চাচ্ছেন নায়ক-নায়িকা একসঙ্গে থাকতে! তখন তিনি বলেন, ওরা তো স্বামী-স্ত্রী। আপনি কসম করেন, কাউকে বলবেন না। আমি বলেছিলাম, ঠিক আছে এটা ওদের ব্যক্তিগত ব্যাপার। অপুর উদ্দেশ্যে আফসারী বলে গেলেন, এরপর দিন থেকে আপনাকে ম্যাডাম ডাকি। কারণ আপনি শাকিব খানের স্ত্রী। আপনাকে তো ম্যাডাম না ডেকে পারি না।

মালেক আফসারী অনেকদিন ধরে ইউটিউবে ভিডিও প্রকাশ করেন। ইন্ডাস্ট্রির নানান বিষয় নিয়ে নিজের মতামত তুলে ধরেন। এটা নিয়ে তাকে ব্যাঙ্গ করেছেন অপু। সেজন্যই নতুন ভিডিওতে অপুকে জবাব দিয়েছেন তিনি। আফসারী আরও বলেন, আমি আপনাকে ট্রল করেছি, হজম করতে হবে। আমাকে নিয়ে ট্রল করেছেন, এটাও আমার হজম করতে হবে। মিডিয়ায় এসব ট্রল চলবে। সবাই বিনোদন নেবে। রিকশা-ভ্যানচালক অবসর সময়ে এসব থেকেই বিনোদন নেবে, ইউটিউব থেকে বিনোদন নেবে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি তালাকের নোটিশ পাঠানোর ৯০ দিন পার হলে আইনগতভাবে কার্যকর হয়ে যায় শাকিব-অপুর বিবাহ বিচ্ছেদ। এরপর থেকে আর একসঙ্গে কোনো সিনেমাও করেননি এই তারকা জুটি। একাধিক বার তাদের একসঙ্গে দেখা গেলেও, সেটা শুধুমাত্র ছেলে জয়ের সৌজন্যে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.